রক্তদানের মতো মহৎদান আর কিছুই হতে পারে না। রক্তদানে যুবক যুবতীদের আরও স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিযে আসতে হবে। আজকাল দেশে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রয়েছে তারা স্বেচ্ছায় রক্তদানে সহযোগিতা করে আসছেন। বিভিন্ন ক্লাব, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, সামাজিক প্রতিষ্ঠান রক্তদান করে আসছে। তারপরও এই মহৎ কাজে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। রক্ত প্রতিনিয়ত দরকার হয়।


" মানবতা লুকিয়ে রক্তদানের মাজে, আসুন সবাই এগিয়ে আসি এমন মহৎ কাজে"


মাঝে মাঝে খবর আসে ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্তের স্বল্পতা রয়েছে। তখন আমাদের উৎকণ্ঠায় থাকতে হয়। ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্তের এই ঘাটতি পূরণে মানুষ ব্লাড ব্যাঙ্কে এসে বা রক্তদান শিবিরে এসে তার সামাজিক কর্তব্য পালন করছেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানও রক্তদান শিবিরের আয়োজন করে।


"আপনি টাকা দিয়ে কারো জন্য জীবন কিনতে পারবেননা, কিন্তু আপনি রক্ত দান করে কারো জীবন বাঁচাতে পারবেন।"


একটা সময় ব্লাড দিতে মানুষে ভয় পেত এখন আগের সেই ভয় নেই। বর্তমানে স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী ও যুবকরা স্বেচ্ছায় ব্লাড দিতে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে আসেন মানবতার কল্যাণে। এইভাবেই সকলকে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সহযোগিতা করে মানবিক কাজে এগিয়ে আসুন। ইনশাআল্লাহ একজন মানুষও রক্তের অভাবে মারা যাবেনা।

প্রকাশক : কাজী জসিম উদ্দিন   |   সম্পাদক : ওয়াহিদুজ্জামান

© Deshchitro 2023