শেষ পর্যন্ত দর্শকশূন্য মাঠেই হচ্ছে বিপিএল ৬ বছরেও বেসিকের মামলার তদন্ত শেষ করতে দুদক ‘ব্যর্থ’: হাইকোর্ট সিআইপি কার্ড পেলেন ১৭৬ ব্যবসায়ী খানজাহানের বসতভিটা খননে বেরিয়ে আসছে বহু পুরোনো প্রত্নবস্তু আইপিটিভি ও ইউটিউবে সংবাদ প্রচার করলে ব্যবস্থা শেষ হলো তিনদিনের ডিসি সম্মেলন পল্লবী থানার ওসিসহ ১৭ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন দুর্ঘটনা রোধে মহাসড়কে গাড়িতে থাকবেন দু’জন চালক! নিউইয়র্কে চোখের পলকে গাড়ি চুরি শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডির জন্য ৪ নির্দেশনা মার্কিন ফেডারেল কোর্টের বিচারপতি হলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নুসরাত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলেই সাংবাদিককে গ্রেফতার নয়, ডিসিদের আইনমন্ত্রী দুর্নীতি রোধে ডিসিদের সহযোগিতা চাইলো দুদক ব্যাংকারদের সর্বনিম্ন বেতন বেঁধে দিলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক র‌্যাবের প্রতি অবিচার হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ চা উৎপাদন এমপিওভুক্ত হলেন ২২৭৮ শিক্ষক-কর্মচারী শান্তিরক্ষা মিশনে র‌্যাবকে নিষিদ্ধের দাবিতে ১২ সংস্থার চিঠি পাকিস্তানে ব্যস্ত বাজারে বোমা বিস্ফোরণ, নিহত ৩ ২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ: দুই কাস্টম কর্মকর্তা কারাগারে

বরিশালে স্বামীকে হত্যায় স্ত্রী ও পরকীয়া প্রেমিকের যাবজ্জীবন

সুব্রত বিশ্বাস - বরিশাল প্রতিনিধি

প্রকাশের সময়: 30-11-2021 23:05:55

Photo caption : বরিশালে স্বামীকে হত্যায় স্ত্রী ও পরকীয়া প্রেমিকের যাবজ্জীবন

বরিশালের বাবুগঞ্জে স্বামীকে হত্যার অপরাধে স্ত্রী ও তার পরকীয়া প্রেমিককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সেইসঙ্গে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (নভেম্বর ৩০) দুপুরে বরিশাল জননিরাপত্তা বিঘ্নকা‌রী অপরাধ দমন ট্রাইবুনালের বিচারক টিএম মুসা আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন-বাবুগঞ্জের দক্ষিণ চাঁদপাশার আ. সত্তার হাওলাদারের মেয়ে শারমিন জাহান সুমা ওরফে ময়না এবং পরকীয়া প্রেমিক বরিশাল নগরীর দক্ষিণ আলেকান্দা এলাকার মনির হোসেন ওরফে উজ্জল ফকির। মামলা সূত্রে জানা গেছে, কবিরুল ইসলাম লিটন ২০১৪ সালের ৩০ মার্চ বরিশাল নগরীর দক্ষিণ আলেকান্দায় আসামি মনির হোসেন ওরফে উজ্জল ফকিরের বাসায় বেড়াতে আসেন। তাকে অপরহণের পর হত্যা শেষে লাশ কীর্তনখোলা নদীতে ফেলে দেয়। ওই বছর ৩ এপ্রিল লিটনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই দিনই বন্দর থানার এসআই হেমায়েত কবির বাদী হয়ে মামলা করেন। ২০১৭ সালের ৪ জানুয়ারি সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার রেজাউল করিম মামলাটি তদন্ত করেন। তদন্তে পরকীয়ার কারণে ভিকটিম কবিরুল ইসলাম লিটনকে তার স্ত্রী ময়না ও তার পরকীয়া প্রেমিক মনির হত্যা করেছে বলে প্রমাণ পাওয়া যায়। তদন্ত কর্মকর্তা ময়না এবং মনিরকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দাখিল করে। রাষ্ট্রপক্ষ ২৪ জনের সাক্ষ্য প্রদানে সক্ষম হয়। সাক্ষী প্রমাণে দোষী সাব্যস্ত হলে আদালত ওই দু'জনকেই সাজা দেন। আসামিদের বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি লস্কর নুরুল হক।


Tag