শেষ পর্যন্ত দর্শকশূন্য মাঠেই হচ্ছে বিপিএল ৬ বছরেও বেসিকের মামলার তদন্ত শেষ করতে দুদক ‘ব্যর্থ’: হাইকোর্ট সিআইপি কার্ড পেলেন ১৭৬ ব্যবসায়ী খানজাহানের বসতভিটা খননে বেরিয়ে আসছে বহু পুরোনো প্রত্নবস্তু আইপিটিভি ও ইউটিউবে সংবাদ প্রচার করলে ব্যবস্থা শেষ হলো তিনদিনের ডিসি সম্মেলন পল্লবী থানার ওসিসহ ১৭ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন দুর্ঘটনা রোধে মহাসড়কে গাড়িতে থাকবেন দু’জন চালক! নিউইয়র্কে চোখের পলকে গাড়ি চুরি শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডির জন্য ৪ নির্দেশনা মার্কিন ফেডারেল কোর্টের বিচারপতি হলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নুসরাত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলেই সাংবাদিককে গ্রেফতার নয়, ডিসিদের আইনমন্ত্রী দুর্নীতি রোধে ডিসিদের সহযোগিতা চাইলো দুদক ব্যাংকারদের সর্বনিম্ন বেতন বেঁধে দিলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক র‌্যাবের প্রতি অবিচার হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ চা উৎপাদন এমপিওভুক্ত হলেন ২২৭৮ শিক্ষক-কর্মচারী শান্তিরক্ষা মিশনে র‌্যাবকে নিষিদ্ধের দাবিতে ১২ সংস্থার চিঠি পাকিস্তানে ব্যস্ত বাজারে বোমা বিস্ফোরণ, নিহত ৩ ২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ: দুই কাস্টম কর্মকর্তা কারাগারে

যশোরে ডজনখানেক সমিতির প্রলোভনে পড়ে ধুকে ধুকে মারা গেছেন ৫৭ জন, শয্যাশায়ী বহু

আবেদ হোসাইন - যশোর সদর প্রতিনিধি

প্রকাশের সময়: 29-11-2021 17:43:32

Photo caption :


 এহসান শিরোনামের ৩টি মাল্টি পারপাসসহ ডজনখানেক সমিতির সংঘবদ্ধ প্রতারকের প্রলোভনে পড়ে ধুকে ধুকে যশোরে মারা গেছেন ৫৭ জন। সারা জীবনের সঞ্চয় ওদের হাতে তুলে দিয়ে শেষ জীবনে অর্থাভাবে ওষুধ পর্যন্ত কিনতে পারেননি তারা। অনেকটা বিনা চিকিৎসায় মরতে হয়েছে। তাদের পরিবার পরিজনেরও এখন করুণ দশা। একইসাথে যশোরের শতাধিক ভুক্তভোগী লগ্নিকারী এখন রোগেশোকে বিছানায় শয্যাশায়ী। এক সময় অর্থ বৈভবের মালিক থাকলেও প্রতারকদের কারণে আজ তাদের জীবন চলছে ফকিরের হালে। কারো ওষুধ কেনার টাকা নেই। কারো ঠিকমত খাদ্য জুটছে না।
২০০৮ থেকে ২০১৪ সাল। ফাঁদে পা দেয়াদের মধ্যে চাঁচড়ার রাজা বরদাকান্ত রোডের মৃত আব্দুল হকের স্ত্রী আম্বিয়া (৬০) পাঁচ লাখ টাকা, ঝুমঝুমপুরের মুক্তিযোদ্ধা কলোনীর মৃত আব্দুস সামাদের স্ত্রী রহিমা খাতুন (৬৫) সাত লাখ টাকা, রুপদিয়ার মৃত শের আলীর ছেলে নূর ইসলাম (৬০) চার লাখ টাকা, বাঘারপাড়ার ঘোষনগরের শরৎ চন্দ্রের স্ত্রী শেফালী রাণী শীল (৬৫) ছয় লাখ টাকা ও একই গ্রামের সূব্রত অধিকারীর স্ত্রী দূর্গা রাণী অধিকারী (৬০) পাঁচ লাখ টাকা তুলে দেন সমবায়ী নামধারী প্রতারকদের হাতে। বাড়ির সবর্স্ব খুইয়ে ওই টাকা লগ্নি করে আজ তারা চরম অর্থাভাবে দিন কাটাচ্ছেন। রোগে শোকে শয্যাশায়ী। বৃদ্ধ বয়সে বিনা সুদের টাকা ভোগ করার স্বপ্ন তাদের শেষ। বাকি জীবন ভাল কাটাবেন এই জন্য হুজুরদের কথায় বিশ্বাস করে টাকা রেখেছিলেন কিন্তু, এখন হচ্ছে ঠিক তার উল্টোটা। লাভ তো দূরের কথা সেই সাত বছর ধরে ওই চক্রের মোবাইল ফোনও বন্ধ। টাকা নেয়ার সময় দিনে দু’পাক দিলেও এখন কেউ খোঁজ নিতে আসে না। তারা জানান, ঠিকমত পথ্য ও দু বেলা খাবার জোটে না। অনেকটা পরনির্ভর হয়ে মানবেতর জীনযাপন করছেন তারা। এখন তারা প্রতারকদের কঠিন শাস্তি ও পরিণাম দেখতে চান।  
একই অবস্থা হামিদপুর এলাকার কামরুজ্জামান, রূপদিয়া এলাকার শের আলী, বারান্দীপাড়া এলাকার বিধবা আমিরুননেছা, ও কুলসুম বেগমের। পুরাতন কসবা মিশনপাড়ার আফসার উদ্দিন, সীতারামপুরের আবুল কালাম, বালিয়া ভেকুটিয়ার মোহাম্মদ হানিফ, বারান্দীপাড়ার আমিনুন্নেছা, রাজারহাট এলাকার শাহাজাদী বেগম, বারান্দীপাড়ার আলেয়া বেগম, পূর্ববারান্দী মাঠপাড়ার নাছিমা খাতুন, একই এলাকার রায়হানুল ইসলাম, নাজির শংকরপুর এলাকার তরিকুল ইসলামের পরিবারে এখন ঘোর অমানিশা। তাদের অনেকেই এখন শয্যাশায়ী। লগ্নিকারী এসব পরিবারের সদস্যরা এখনও পথ চেয়ে আছেন ওই টাকা কবে ফেরত পাবেন।
এহসানের হালাল উর্পাজনের টাকায় হজ করত চেয়েছিলেন পুরতান কসবার আফসার আলী। এখন তিনি প্যারালাইজড। জানান, নিকট আত্মীয়ের মহানুভবতায় ওষুধ কিনছেন। কিন্তু তার একটাই প্রশ্ন কতদিন চলবে এভাবে ? এহসানে তার লগ্নি ছিল ১০ লাখ টাকা। তার মত বারান্দীপাড়া কদমতলার রবিউল ইসলাম, শাখারিগাতীর আবদুল জলিলসহ আরো অনেকেই রয়েছেন শয্যাশায়ী।
লগ্নিকারীদের মধ্যে এপর্যন্ত যারা পৃথিবী ছেড়েছেন তাদের মধ্যে পশ্চিম বারান্দীপাড়ার শামসুর রহমান একজন। তার বাসায় গেলে চোখে পড়ে এক করুণ চিত্র। স্যাঁতসেঁতে পরিবেশে জরাজীর্ণ ভাড়া বাসাটিতে মানবেতর দিন কাটে তার পরিবারের সদস্যদের। মৃত শামসুর রহমানের স্ত্রী আরেয়া খাতুন ও ভাগ্নি তাসলিমা বেগম জানান, মুসলিম একাডেমিতে কেরানীর চাকরি করতেন শামসুর রহমান। সারা জীবন চাকরির পর সেখান থেকে পাওয়া শেষ সম্বল পাঁচ লাখ টাকা লগ্নি করেছিলেন এহসান ইসলামী মাল্টিপারপাসে।
একই এলাকার মৃত মোমিনুল ইসলামের স্ত্রী নূরজাহান বেগম, ছেলে মাসুদ আহমেদ ও পুত্রবধূ রিক্তা বেগম জানান, ছোট একটি ব্যবসা নষ্ট করে চার লাখ টাকা দেয়া ছিল এহসান ইসলামী রিয়েল স্টেটে।  একটি টাকা উপার্জন দূরের কথা, মূল টাকা  ফেরত পাননি তারা। অর্থাভাবে ওষুধপথ্য কিনতে না পেরে শেষমেশ মারা গেছেন মোমিনুল। একই অবস্থা মারা যাওয়া লগ্নিকারী ভেকুটিয়ার জয়নাল আবেদীন, বজলুর রহমান, পূর্ববারান্দীপাড়ার আবু কাওছার, নূরজাহান বেগমের ক্ষেত্রেও। তাদের বাড়ি ও পরিবারের এখন করুণ হাল। রেলগেটের  আব্দুল গফুর, রুপদিয়ার আলী গাজী, মুড়লি খাঁ পাড়ার গনি মিয়া ও কাজীপুরের জব্বার আলীর পরিবার পরিজনও চরম আর্থিক কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন। টাকা হারিয়ে তাদের মত শত কষ্টে রয়েছে যশোর শহর ও শহরতলীতে আরো অসংখ্য পরিবার। যাদের কারো বাবা, বড় ভাই, মা  টাকা লগ্নি করে মারা গেছেন। এসব পরিবারে এখন শুধুই হা হুতাশ আর কান্না।