রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে মারা গেল ৪ জন সরিষাবাড়িতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন । নৌকার বিরুদ্ধে নির্বাচনী প্রচারণায় এসে জনগনের রেশানলে এলাকা ছাড়া পুলিশের এসআই উন্নয়ন হয়েছে বলেই মানুষ এখন ত্রাণের বদলে বাঁধ চায়: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির নানান আয়োজনে বরিশালে কবি জীবনানন্দ দাশ’র প্রয়ান দিবস পালিত বরিশালে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উদযাপন ঝিনাইগাতীতে ১৪ বছর যাবত উল্টে আছে সেতু, সংস্কারের উদ্যোগ নেই শেরপুর জেলা ফুটবল লীগে চকপাঠক ক্রীড়াচক্র ৪-২ গোলে জয়ী। নিরাপদ সড়ক দিবসের দিন সড়কে প্রাণ ঝড়ল শিশুর। মাল্টা চাষে সফলতা পেয়েছেন ওসমান বাংলাদেশ হিউম্যান হেল্পিং সোসাইটি'র ইডেন মহিলা কলেজে পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন। পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা সেই ইকবাল আটক এই প্রথম আমাদের পাশে কোন মেয়র দাড়ালেন, তিনি হলেন গরীবের বন্ধু বরিশালের মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ্ ভাই ইসলাম কখনোই সাম্প্রদায়িকতা সমর্থন করে না : বিএমপি কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম বরিশাল’র নেতৃবৃন্দের সাথে ফোরথট পিআর কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎ আসাদুজ্জামান সাদিদের দায়িত্ব নিলেন বরিশাল জেলা প্রশাসক পরিমাপে কারচুপির অপরাধে বরিশালে দুটি তেলের পাম্পমালিককে জরিমানা ৮৪ রানের জয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্বে বাংলাদেশ পাপুয়া নিউগিনিকে ১৮২ রানের টার্গেট দিল বাংলাদেশ

গুচ্ছ সিলেকশনে স্বপ্ন ভাঙ্গার গল্প: কী ভাবছে ভর্তি পরীক্ষার্থীরা?

সায়েম আহমাদ - এডিটর

প্রকাশের সময়: 27-08-2021 07:51:19

Photo caption : ফিচার



করোনা পরিস্থিতি এবং শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে দেশের ১০ টি সাধারণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সহ মোট ২০ টি বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে গুচ্ছ ভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা করা হয়। তবে শিক্ষার্থীদের সুখের চিন্তায় বহু শিক্ষার্থীর স্বপ্নভঙ্গ হচ্ছে গুচ্ছের সিলেকশন পদ্ধতির কারণে। মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার আবেদনকৃত সকলে পরীক্ষায় বসতে পারলেও বাদ পড়েছে বিজ্ঞান বিভাগের জিপিএ - ৫ প্রাপ্তও অনেকেই। স্বপ্নভাঙ্গা এইসব শিক্ষার্থীদের কথাগুলো তুলে ধরেছেন - মোহাম্মদ ইয়াছিন ইসলাম



স্বপ্নভঙ্গের দায় কে নিবে?


 যেখানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় গত শিক্ষাবর্ষে জিপিএ-৭.০০ প্রাপ্ত সকল শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ দিয়েছে। সেখানে এবছর গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় জিপিএ ৯.৫০ পাওয়া শিক্ষার্থীদেরই ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহনের সু্যোগ দেয়া হচ্ছে না। তাহলে কম জিপিএ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের কি হবে। এমন নয় যে তারা ভালো কোনো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবে। কেনোনা সেখানেও জিপিএ-১০ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সিট পাবে। আসলে 'বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন' শিক্ষার্থীদের অধিকার হরণ করছে।প্রত্যেক শিক্ষার্থীদেরই অধিকার রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার।গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় যদিও মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের সকল শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণের সুযোগ হয়েছে। কিন্তু বিজ্ঞান বিভাগের মাত্র ১,৩১,০০০ শিক্ষার্থী প্রাথমিক আবেদনে মনোনীত হয়েছে।যেখানে অটোপাসের এবছরে সবমিলিয়ে এ+ এর সংখ্যা ১,৬১,০০০এর বেশি। সেখানে গতবছর ছিলো সর্বসাকুল্যে মাত্র ৪৭,২৮৬ জন। বিজ্ঞান বিভাগে এবার অটোপাশে এ+ পেয়েছে ১ লাখ ২৩ হাজার।বিগত বছরে এ সংখ্যা ছিলো মাত্র ৩১,১৯২। তার উপরে কয়েক হাজার 'দ্বিতীয়বার ভর্তিইচ্ছুরা' যারা বিগত দুই বছর ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছে তাদের কি হবে? তারা তো  অটোপাশ করে নি যে, জেএসসি এবং এসএস সি রেজাল্ট এর উপর ভিত্তি করে এইচএসসি রেজাল্ট ভালো হবে। হাজার হাজার শিক্ষার্থীর স্বপ্নভঙ্গের দায় কে নিবে?

কি আজব শিক্ষাব্যবস্থা, এসএসসি এবং জেএসসি রেজাল্টের উপর ভিত্তি করে ভর্তিপরীক্ষায় অংশগ্রহনের প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রণ করছে।



হাসিবুল হাসান

এইচএসসি- ২০১৯

 সরকারি বিএম কলেজ, বরিশাল




নিজেকে প্রমাণের সুযোগ মেলেনি


পরীক্ষায় বসার ধারণক্ষমতা অনুযায়ী গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় ২ লাখ ৫০ হাজার শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে পারবে। তবে ২৮ টি কেন্দ্রে  মাত্র ১ লক্ষ ৩১ হাজার জনকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হবে। অথচ, বিজ্ঞান বিভাগে এবার অটোপাশে জিপিএ-৫  পেয়েছে ১ লাখ ২৩ হাজার।

শুরুতে গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি কমিটি বলেছিলো ১ লক্ষ ৫০ হাজার ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে হবে, এরপর বলা হয়েছিল ১ লক্ষ ৩১ হাজার জন পারবে। তবে সেসব একটিও না মেনে ফলাফলে ১ লক্ষ ১৫ হাজার?

যেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান বিভাগে  ১ লক্ষ ২৩ হাজার আবেদনকারীর সকলে পরিক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাবে সেখানে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়  নিয়ে আয়োজিত গুচ্ছ ভর্তিপরীক্ষায় ২৮ টি কেন্দ্র থাকা সত্ত্বেও মাত্র ১ লক্ষ ১৫ হাজার কেন পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে? স্বপ্ন ছিল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার তবে তা আজ ম্লান হয়ে গেছে। পারিনি নিজেকে প্রমাণ করতে। কি আজব শিক্ষাব্যবস্থা এসএসসি এবং জেএসসি ফলাফলের উপর ভিত্তি করে ভর্তিপরীক্ষায় অংশগ্রহনের প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রণ করছে। 


সাকিবুর রহমান হৃদয়

এইচএসসি- ২০২০

পটিয়া সরকারি কলেজ, চট্রগ্রাম 




সিলেকশন পদ্ধতি বাতিল চাই!


"মূর্খের দেশে আবার কিসের বিশ্ববিদ্যালয়?" 

রবীন্দ্রনাথ শুধু শুধু কথাটি বলেন নি।

যেখানে একজন শিক্ষার্থী দুই পরীক্ষা মিলিয়ে সর্বমোট জিপিএ- ৯.৫০ নিয়ে পরীক্ষা দিতে পারে না তাহলে সেখানে শিক্ষা ব্যবস্থা কোথায়?

গুচ্ছ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তিপরীক্ষা করা হয়েছিলো শিক্ষার্থীদের উপকারের জন্য। তবে ঠিক কি ধরনের উপকার তারা করলেন তা আমার বোধগম্য হলো না। কারন শিক্ষার্থীদের বড় একটা অংশ এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণেরই সুযোগ পেল না। আপনাদের উপকারে যদি আমরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে মেধা যাচাই না করতে পারি, তাহলে এই গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার কি দরকার ছিল?

মাননীয় শিক্ষামন্রী নিজে বলেছেন, জিপিএ দিয়ে কাউকে মূল্যায়ন করা হবে না, তাহলে এখন কেন আমারা এর ভুক্তভোগী হব?

নিজেদের মত করে জিপিএ দিয়ে অটোপাশ দিলেন, আবার এখন পরীক্ষায়ও বসতে দিলেন না।

গুচ্ছের সিলেকশন পদ্ধতি বাতিল চাই।


মিতু ইসলাম

এইচএসসি - ২০২০

কবি নজরুল ডিগ্রি কলেজ,মাদারীপুর




কী লাভ হলো এতো প্রস্তুতি নিয়ে?


করোনার কারণে আমরা এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারিনি। আমরা আশীর্বাদস্বরূপ পেলাম অটোপাশ। তবে সেই অটোপাশই আজ কাল হলো। কারণ দেশের ২০ টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান এ প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালর সমন্বিত ভর্তিপরীক্ষা বা গুচ্ছের সিলেকশন পদ্ধতির মারপ্যাঁচে পরীক্ষায়ই অংশগ্রহণ করা হলো না। মোট জিপিএ- ৯.৪৩ থাকার পড়েও মিলছে না পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ। করোনার এই দীর্ঘ সময় ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি ভর্তিপরীক্ষার জন্য। তবে এই দীর্ঘ সময়ে প্রস্তুতি নিয়ে আখেরে লাভ কিছুই হলো না। পরীক্ষায়ই অংশগ্রহণ করতে পারলাম না। পারলাম না পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পড়বার স্বপ্ন পূরণ করতে। কি লাভ হলো এই প্রস্তুতি নিয়ে?


নাহিদ হোসাইন নিলয়

এইচএসসি- ২০২০

বার্থী ডিগ্রী কলেজ, বরিশাল







Tag
MD.SHAKIB HOSSAIN, SIRAJGANJ ৫৭ দিন ৩ ঘন্টা ৫৪ মিনিট আগে

গুচ্ছ সিলেকশন বাতিল চাই

Md Habibur Rahman, Vitargarh,panchagarh ৫৭ দিন ৩ ঘন্টা ৭ মিনিট আগে

গুচ্ছের সিলেকশন বাতিল চাই

MD.SHAHINUR RAHMAN , Hatibandha, Lalmonirhat ৫৩ দিন ১৬ ঘন্টা ৩৮ মিনিট আগে

MD Shahinur Rahman গুচ্ছতে সিলেকশন বাতিল চাই......... ৬৪ হাজার শিক্ষার্থীকে বাদ দিয়ে এই গুচ্ছ কখনো শিক্ষার্থী বান্ধবহতেপারে না।।।। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে সিলেকশন করা হয়েছে১ লাখ৩২হাজার যেখানে বাদ পড়েছে ৬৪ হাজার মেধাবী শিক্ষার্থী।যেখানে ৯.৪৫(HSC+SSC) এর নিচের সব শিক্ষার্থী বাদ পড়ছে অথচ ৮.০০(HSC+SSC)পেলে গুচ্ছে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করা যেত।এর ফলে বেশি ভোগান্তিতে পড়ছে সেকেন্ড টাইমাররা কারণ তাদের পয়েন্ট কম এবং অনেকের ২ বছর সময় নষ্ট ।।।।।সুতরাং সিলেকশন বাতিল চা।।।।।।।

আরও খবর


আমার একজন বড় ভাই আছেন

১৫ দিন ১২ ঘন্টা ৩১ মিনিট আগে