প্রাথমিক শিক্ষক-কর্মকর্তাদের ৮ কাজে বিরত থাকার নির্দেশ সৌদি আরবের প্রধানমন্ত্রী হলেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বিমানবন্দরে চোখ ওঠা রোগীদের লাগবে চিকিৎসকের সার্টিফিকেট যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রপ্তানি বেড়েছে ৫৪ শতাংশ পুঠিয়ায় প্রাইভেট শিক্ষকের নির্যাতনের শিকার তার স্ত্রী, ও প্রাইভেট শিক্ষকের বিরুদ্ধে অপকর্মের অভিযোগ, এলাকায় পোস্টারিং বিশ্বনেত্রী মাদার অব হিউম্যানিটি শেখ হাসিনার জন্মদিন রাজশাহীতে বিশ্বের দ্বিতীয় ক্ষুদ্রাকৃতির ‘মা’, মাসুরা বেগম দুর্গাপূজা উপলক্ষে হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দের সাথে রাসিক মেয়রের মতবিনিময় টেকনাফে ৪ বছরের শিশু অপহরণ ! রাজশাহীতে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত নিজেকে নিয়ে নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখি কেশবপুরে গ্রাম সামাজিক শক্তি কমিটির উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ হিস্ট্রি ক্লাবের (3MPC) প্রতিযোগিতার জয়ী 'টিম হিস্টোগ্রাফার্স '। বাঘায় সামাজিক সম্প্রীতি কমিটির আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত চবিতে সাংবাদিককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে সারিয়াকান্দিতে জেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে মতবিনিময় জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শেরপুরে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত ঝিনাইগাতীতে পর্যটন দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত টেকনাফে পৃথক অভিযানে ৮৪হাজার পিস ইয়াবা জব্দ! বশেমুরবিপ্রবির ভেটেরিনারি বিভাগে দুইদিন ব্যাপী সার্জিক্যাল কেস প্রাক্টিস

তামাকের বিষাক্ত ছোবলে যুব সমাজ: দরকার যথাযথ ব্যবস্থা

ফাইল ছবি


ডা.রিফাত আল মাজিদ :


মাদকদ্রব্যের মধ্যে যতগুলো উপাদান বা বস্তু আছে তারমধ্যে তামাক কিছুটা ব্যতিক্রম। ব্যতিক্রম শুধু তার কেমিক্যাল গঠন বা অন্য কোন কারনে নয়। এটি মূলত অন্যান্য দেশের মত আমাদের দেশেও সংস্কৃতির একটা অংশ মাত্র। অনেক আগে থেকেই এদেশের মানুষ তামাকের বিভিন্ন রকমের ব্যবহারে অভ্যস্ত। গ্রামে, শহরে এর প্রভাব, জনপ্রিয়তা, মার্কেটিং কোন দিক থেকেই কম নেই। এটি এমন একটি মাদক যা প্রকাশ্যে সবাই গ্রহণ করে কিন্তু লজ্জিত হয় না বরং আরো গর্বকরে সবার সামনে তামাক জাতীয় মাদকদ্রব্য সেবন অনেকটা বাহাদুরির পর্যায়ে চলে গেছে। অনেকে আবার একে মাদকদ্রব্য মানতেই নারাজ! এ নিয়ে বিজ্ঞান মহল থেকে শুরু করে চায়ের দোকানেও চলে বিস্তর বিতর্ক এবং যুক্তি পাল্টা যুক্তির ঢেউ। তামাক যে একপ্রকার মাদক বা তার চেয়েও খারাপ কিছু এতে সন্দেহ নেই। কিন্তু আমাদের সমাজে বহুকাল আগে থেকেই এটি সহজলভ্য এবং সুপরিচিত। তরুণরা একটু বড় হলেই এই তামাকের বানানো সিগারেট বা বিড়ি মুখে নিতে উগ্রদিব থাকে।নতুন অভিজ্ঞতা অর্জন আর নতুন কিছুর স্বাদ নিয়ে তারা বুঝতে চায় এবং বুঝাতে চায় এরা আজ বড় হয়েছে। বাবা চাচা মামাদের দেখে আসছে কিভাবে উনারে এসব সেবন করছেন! এরকম সামাজিক সংস্কৃতির মধ্যে বেড়ে উঠা তরুণ সমাজকে এসব ক্ষতিকম দ্রব্য থেকে দূরে রাখা বা তাদেরকে এসবের ব্যবহারের ফলে ভবিষ্যত ক্ষতির ভয় দেখিয়ে বিরত রাখা অনেকটা অসম্ভব মনে হয় তবে যারা সচেতন অভিভাবক কিংবা যাদের ফ্যামিলি পরিবেশ সুন্দর, পরিবারে নীতি নৈতিকতার চর্চা আছে তাদের জন্য ব্যপারটা খুব সহজ। এবং এসব পরিবারের ছেলে মেয়েরা এসব বাজে বস্তুর নেশায় খুব একটা পরে না আবার পরলেও তাদেরকে তুলে আনা সম্ভব হয়। কিন্তু অভিবাবক সচেতন না হলে কিংবা তিনি যদি নিজেই ধূমপায়ী বা মাদকসেবী হন তাহলে তার নিজের সন্তানকে এসব থেকে দূরে রাখার নৈতিক শক্তি ও মনোবল হারাবেন। তাই এসব মাদক বা তামাক জাত পন্য ই-সিগারেট থেকে শুরু করে অন্যান্য তামাক পণ্যের ব্যবহার যেন তরুণদের গ্রাস করতে না পারে সেজন্য আমাদের সবাইকে কার্যকরি পদক্ষেপ নিতে হবে। এর মধ্যে তামাক পন্যের কর বৃদ্ধি, তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের যুগোপযোগী করন, পাঠ্যসূচিতে তামাক ও মাদকের ক্ষতিকর প্রভাব সমূহের বিস্তারিত বিরবণ সহ প্রবন্ধ যুক্ত করা এবং তামাক কোম্পানি গুলোর প্রক্রিয়াজাত,বাজারজাত সহ সকল ক্ষেত্রে আইনের কঠোর প্রয়োগ বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। 

তাই রাষ্ট্রীয়,সামাজিক,পারিবারিক ও ব্যক্তিগতভাবে সবার উচিত আমাদের তরুণদের স্বাস্থ্যগত ও অর্থনৈতিকদিক বিবেচনা করে মাদক তামাকের ভয়াবহ ভবিষ্যত এই মহামারি থেকে বাচানোর জন্য চেষ্টা করে যাওয়া এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করা।


ডা.রিফাত আল মাজিদ

এমবিবিএস(ঢাঃবিঃ),এমপিএইচ

ঢাকা কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, মগবাজার,ঢাকা