সাইকেলে করে ভারত ভ্রমন! 'স্বপ্ন' নিয়ে প্রতারনার জাল ফেসবুকে! ২য় ম্যাচে ব্রাজিলের ড্র! স্বেচ্ছাশ্রমে কুড়িগ্রামে করোনার টিকা রেজিস্ট্রেশন ক্যাম্প শামীমের ব্যাটে শেষ রক্ষা বাংলাদেশের সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে অতর্কিত হামলায় দুই সেনা নিহত, তুরস্কের হুশিয়ারি চামড়া ব্যবস্থাপনার আমরা সুফল পেয়েছি: শিল্পমন্ত্রী কোটিপতি বেড়েছে আরও ১১৬৪৭ জন কুড়িগ্রামে বিয়ের প্রলোভনে প্রেমিকাকে ধর্ষণ কুড়িগ্রামে ভিক্ষের টাকা ঘুষ দিয়েও ভাতা কার্ড পাননি ষাটোর্ধ রাবেয়া আজমিরীগঞ্জে লকডাউনে কঠোর অবস্হানে প্রশাসন শেরপুরের সোহাগপুর গণহত্যা দিবস পালিত করোনার মৃত্যু ও সংক্রমণে শীর্ষে ঢাকা টস হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ ইরাক থেকেও মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করোনায় কর্মহীনদের তালিকা করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বান অলিম্পিক ফুটবলে আর্জেন্টিনার প্রথম জয় মৌসুমি বায়ুর জন্য ফের বৃষ্টি বাড়বে সংগঠনের নামে ‘লীগ’ বা ‘আওয়ামী’ জুড়ে আ.লীগে সম্পৃক্ত হওয়ার সুযোগ নেই লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

যুবসমাজকে মানবসম্পদে রূপান্তর করা জরুরি

মোহাম্মদ রায়হান - ঢাকা কলেজ প্রতিনিধি

প্রকাশের সময়: 09-06-2021 07:45:25

Photo caption :

বাংলাদেশ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর গোড়ায় দাঁড়িয়ে আছে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশে পদার্পণ করেছে। পৃথিবীর কোনো দেশ স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে দেশের সর্বক্ষেত্রে এমন উন্নতি সাধন করেছে কিনা তার ইতিহাস বিরল। সব দিক দিয়েই পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশের দৃঢ় অবস্থান বলা চলে। এত উন্নতির মধ্যেও বাংলাদেশের প্রধান সমস্যা হলো জনসংখ্যা। ভৌগলিক অবস্থানের তুলনায় বাংলাদেশের জনসংখ্যা বহুল। কিন্তু বহুল জনসংখ্যাকে কাজে লাগিয়েও দেশের অবস্থান বিশ্ব মানচিত্রে শক্ত করা সম্ভব তা খুব বেশি দেশ দেখাতে না পারলেও কিছু কিছু দেশ তা করে দেখিয়েছে। এই বহুল জনসংখ্যাকে কাজে লাগিয়ে দেশের সার্বিক উন্নয়ন উচ্চতর করা যায় তার প্রধান উদাহরণ হলো চীন। চীন পৃথিবীর সব থেকে জনসংখ্যা বহুল দেশ হয়েও তাদের জনসংখ্যাকে যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে পৃথিবীর বুকে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। দেশের জনগণকে যথাযথ ব্যবহারে মাধ্যমে উন্নতি সাধন করাকে বলা হয় মানব সম্পদ। মূলত মানব সম্পদ বলতে কর্মদক্ষতাকে বুঝায়। বিভিন্ন অর্থনৈতিক সমীক্ষা ও বিশ্লেষণ থেকে জানা যায়, কোনো দেশের জাতীয় আয় (GNP) যেমন দেশের প্রাকৃতিক সম্পদের সাথে সম্পৃক্ত তেমনিভাবে দেশের মানুষের গুণগত মানের সাথে ও সম্পৃক্ত। অর্থাৎ সমাজের বসবাসকারীদের ছাড়া অর্থনৈতিক উন্নতি সাধন করা কোনো ক্রমেই সম্ভব নই। দেশের জনগণকে সুপরিকল্পিতভাবে পরিচালনার মাধ্যমে দেশের উন্নতি তরান্বিত করার যে প্রচেষ্টা সেটাই মানবসম্পদ।


বলা হয়ে থাকে বাংলাদেশ তারুণ্যের জয়গানময় দেশ। এক সমীক্ষা থেকে জানা যায়, বাংলাদেশের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যাই ২৪ বছরের নিচে অর্থাৎ অর্ধ-শতাংশের কাছাকাছি তরুণ। সচারাচর যে সব দেশে তরুণের সংখ্যা বেশি থাকে সেই সব দেশ সম্ভবনাময় হয়ে থাকে। এই তরুণ সমাজকে কাজে লাগিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে হলে তরুণ সমাজকে দক্ষ মানব হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। তরুণদের দক্ষ মানব হিসেবে গড়ে তুলতে হলে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য তাঁদের প্রস্তুত করে তুলতে হবে। বর্তমান সময়ে উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে হলে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাহিরে কারিগরি শিক্ষা, কৃষিখাত ও প্রযুক্তিগত জ্ঞান থাকা আবশ্যক। আর দেশকে এগিয়ে নিতে হলে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি বিভিন্ন আত্ম-উন্নয়নমূলক দক্ষতা থাকা জরুরি। তাই তরুণদের দক্ষ মানব হিসেবে গড়ে তুলতে হলে ব্যক্তিগত পদক্ষেপ যেমন জরুরি তেমন সরকারি পদক্ষেপ নেওয়াও জরুরি।  


বর্তমান উন্নত বিশ্বে শিল্পকারখানার পাশাপাশি কৃষি ক্ষেত্রেও খুবই জোর দিচ্ছে। কৃষিপণ্য কিভাবে অল্প খরচে কম সময়ে অধিক ফলন পাওয়া যায় সে দিকে অধিকাংশই দেশ কাজ করে যাচ্ছে। সাধারণত দেখা যায় উন্নত বিশ্বে শিক্ষিতরাই কৃষিপণ্য উৎপাদনে অগ্রণী ভুমিকা পালন করে, কিন্তু বাংলাদেশে একেবারে তার ঠিক উল্টো চিত্র চোখে পড়ে। বাংলাদেশে অশিক্ষিতরাই কৃষি কাজ করে। কিন্তু বর্তমান সময়ে এর কিছু হেরফের দেখা যাচ্ছে। ছাত্র সমাজ এখন পড়ালেখার পাশাপাশি কৃষিপণ্য উৎপাদন করে নিজের খরচের যোগান দিচ্ছে এরকম হরহামেশাই দেখা যাচ্ছে। সারাদিন পড়ালেখা নিয়ে থাকতে হবে এই চিন্তাভাবনা থেকে ছাত্রসমাজ আস্তে আস্তে সরে আসছে। ছাত্র থাকাকালীন সময়েই ছাত্ররা নানারকম উন্নয়নমূলক কাজ ও নিজের ভরণপোষণ নিজেই সামাল দেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে। বাপদাদার বসতবাড়িতে অকাজে পড়ে থাকা জায়গাকে কাজে লাগিয়ে ছাত্ররা নানা রকম শাকসবজি উৎপাদন করে যাচ্ছে। এতে পরিবারের ভরণপোষণ পুরোপুরি সামাল দিতে না পারলেও নিজের খরচ নিজেই যোগান দেওয়া সম্ভব হচ্ছে। ছাত্রদের যে এই স্পৃহা সেটাকে কাজে লাগাতে হবে সরকারের। সরকারের উচিত এইসব বিষয়ে নজরদারি করে ছাত্রসমাজ যেন এসব উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে আরো বেশি দক্ষভাবে জড়িতে হতে পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া। সেটা হতে পারে প্রত্যেক ইউনিয়নে কৃষি অফিস স্থাপন নিশ্চিত করে ছাত্রসমাজকে যেন উদ্ভুদ্ধ করা যায় তার জন্য কৃষি বিষয়ে পারদর্শী জনবলকে মাঠ পর্যায়ে কাজ করার মাধ্যমে। কৃষি কর্মকর্তা এলাকায় গিয়ে ছাত্রসমাজকে উদ্ভুদ্ধ করবে। প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিবে, প্রয়োজনে স্বল্পমেয়াদী ঋণের মাধ্যমে আর্থিক সহায়তা দেবে। এতে করে ছাত্রসমাজ যেভাবে দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকবে তেমনিভাবে ছাত্রসমাজ দক্ষ মানবসম্পদের ও পরিণত হবে।      

                   

আজকাল এলাকায় এলাকায় দেখা যায় সচেতন ছাত্ররা বসে না থাকে বাসার ছাদে বা ছোট্ট ছোট্ট কোনো কোনো জায়গায় বায়ো ফ্লোক বা বিভিন্ন প্রজেক্টের মাধ্যমে মাছ উৎপাদন করছে যা আমাদের মৎস্য চাহিদা যোগানে বেশি ভুমিকা না রাখলেও কিছুটা হলেও ভুমিকা রাখছে। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র থেকে সৃষ্টি হবে বৃহৎ কিছুর। তাই মৎস্য বিষয়ক সহায়তা ও প্রশিক্ষণের জন্য সরকারের দক্ষ জনবলকে কাজে লাগাতে হবে। এতে করে ছাত্রসমাজ তাদের স্বীকৃতি স্বরূপ অনুপ্রেরণা পাবে। এতে ছাত্রসমাজ আরো বেশি জোড়ালোভাবে এসমস্ত কাজে নিজেকে নিয়োজিত করবে। তাছাড়াও অন্যান্য ছাত্রদেরও এই বিষয়ে ধারণা দিয়ে উদ্ভুদ্ধ করে তুলতে পারে, এবং প্রশিক্ষণ দানের মাধ্যমে দক্ষ মানবসম্পদ তৈরিতে অগ্রণী ভুমিকা রাখতে পারে।


বর্তমানে ঘরে বসেই বিশ্বের নানা প্রান্তের কোম্পানির বা ব্যক্তির নানারখম ডকুমেন্টস তৈরি, গ্রাফিকসের কাজ, ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ করে দিয়ে অর্থ উপার্জনের ধার উন্মুক্ত হয়েছে। ঘরে বসে অর্থের বিনিময়ে স্বাধীন চিন্তায় বহির্বিশ্বের কাজ করে দেয়াকে ফ্রিল্যান্সিং বলে। যেহেতু এই কাজের মধ্যে নিজের স্বাধীনতা ও ভালা মানের অর্থ উপার্জন হই তার কারণে ছাত্রদের মাঝে এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে। এবং ফ্রিল্যান্সিং জগতে কাজ করার সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশ ভালো অবস্থানে আছে। কিন্তু দিন দিন বহির্বিশ্বেও এর জনপ্রিয়তা বাড়ার কারণে প্রতিযোগিতা বেড়েই চলেছে। তাই বাংলাদের ভালো অবস্থানকে দৃঢ় করতে হলে সরকারের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। ইতিমধ্যে সরকার এর কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে যা পর্যাপ্ত নই। আর তাছাড়া ফ্রিল্যান্সিং এর মত এরকম কাজ সম্পর্কে শহরের ছাত্ররা যেরকম অবগত আছে তার ছিটেফোঁটাও গ্রামে থাকা ছাত্ররা জানে না। তাই গ্রাম পর্যায়ে এর প্রচার প্রসার করতে হবে। তাছাড়া বর্তমান সময় তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। দিন দিন এর প্রতি নির্ভরতা বেড়েই চলেছে। উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে হলে প্রযুক্তির ক্ষেত্রে দক্ষ না হলে উন্নয়ন নিম্নমুখী হওয়া থেকে নিস্তার করা সম্ভব হবে না। তাই তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে খুবই জোড়ালো পদক্ষেপ না নিলে এর জন্য খেসারত দিতে হবে। সরকারের উচিত এই বিষয়ে নজর দিয়ে দেশের ছাত্রসমাজকে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করে উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মেলাতে পারার জন্য যোগ্য করে তোলা।    


সরকারের ছাত্রসমাজকে দক্ষ মানবসম্পদে রূপান্তর করা জরুরী। বিশ্বায়নের যুগে উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হলে ছাত্রসমাজকে দক্ষ মানবসম্পদ গড়তে এখন থেকে কাজ করতে হবে সরকারের ও ছাত্রদের। সরকারের যেরকম প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া যেমন জরুরি ঠিক তেমনি ছাত্রদেরও এই বিষয়ে আগ্রহ দেখাতে হবে। নিজেরদের গড়ে তুলতে ও দেশকে এগিয়ে নিতে ছাত্রদের সোচ্চার হওয়া জরুরি। তারুণ্যের জয়গান নিয়ে বিশ্বায়নের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ এমনটি প্রত্যাশা রাখি।

 

সাজ্জাদ হোসেন রায়হান

শিক্ষার্থী, অর্থনীতি বিভাগ

ঢাকা কলেজ, ঢাকা      

Tag