রোহিঙ্গাদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে মারা গেল ৪ জন সরিষাবাড়িতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন । নৌকার বিরুদ্ধে নির্বাচনী প্রচারণায় এসে জনগনের রেশানলে এলাকা ছাড়া পুলিশের এসআই উন্নয়ন হয়েছে বলেই মানুষ এখন ত্রাণের বদলে বাঁধ চায়: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ ও জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির নানান আয়োজনে বরিশালে কবি জীবনানন্দ দাশ’র প্রয়ান দিবস পালিত বরিশালে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উদযাপন ঝিনাইগাতীতে ১৪ বছর যাবত উল্টে আছে সেতু, সংস্কারের উদ্যোগ নেই শেরপুর জেলা ফুটবল লীগে চকপাঠক ক্রীড়াচক্র ৪-২ গোলে জয়ী। নিরাপদ সড়ক দিবসের দিন সড়কে প্রাণ ঝড়ল শিশুর। মাল্টা চাষে সফলতা পেয়েছেন ওসমান বাংলাদেশ হিউম্যান হেল্পিং সোসাইটি'র ইডেন মহিলা কলেজে পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন। পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা সেই ইকবাল আটক এই প্রথম আমাদের পাশে কোন মেয়র দাড়ালেন, তিনি হলেন গরীবের বন্ধু বরিশালের মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ্ ভাই ইসলাম কখনোই সাম্প্রদায়িকতা সমর্থন করে না : বিএমপি কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম বরিশাল’র নেতৃবৃন্দের সাথে ফোরথট পিআর কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎ আসাদুজ্জামান সাদিদের দায়িত্ব নিলেন বরিশাল জেলা প্রশাসক পরিমাপে কারচুপির অপরাধে বরিশালে দুটি তেলের পাম্পমালিককে জরিমানা ৮৪ রানের জয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্বে বাংলাদেশ পাপুয়া নিউগিনিকে ১৮২ রানের টার্গেট দিল বাংলাদেশ

নারী নির্যাতন বন্ধ হোক

মোঃ নাজমুচ্ছাকিব - রিপোর্টার

প্রকাশের সময়: 22-08-2021 13:47:37

Photo caption : নারী নির্যাতন বন্ধ হোক

আমাদের এই ছোট্র সোনার বাংলাদেশ। দেশের অধিকাংশ মানুষ দিন এনে দিন খেয়ে থাকেন। এই দেশের কিছু পুরুষ নামের অমানুষ নারীর উপর পাশবিক নির্যাতন করে থাকে। যার কারণে প্রত্যেক বছর কয়েক হাজার নারীর প্রাণ ঝরে যায়। জহির রায়হানের হাজার বছর ধরে উপন্যাস বা সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ লালসালু উপন্যাসে নারী নির্যাতনের যে চিত্র ছিল বর্তমানেও সেটা লক্ষ্য করা যায়। নারী নির্যাতন রোধের সচেতনতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে চারজন সমাজ কর্মীর মতামত নিয়ে লিখেছেন মোঃ নাজমুচ্ছাকিব। 


তরিকুল ইসলাম 

সিনিয়র অফিসার, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক। 

কিসে নারী কিসে পুরুষ 

সবই তো সে একই রক্তের মানুষ। 

Simone de Beauvoir asserts," One is not born woman but rather becomes woman". আমাদের আর্থসামাজিক পরিবেশ পরিস্থিতি একজন মেয়েকে আলাদা প্রজাতি হিসেবে ভাবতে শেখায়।

নারী হচ্ছে সেই বাহন

যে বাহনে চড়ে একজন পাড়ি দিতে পারে তার জীবন সাতকাহন। 

নারীর প্রতি নির্যাতন প্রতিহত করতে নারীনীতি ২০১১ কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে। 

নারীর প্রকৃত ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হবে। সর্বোপরি একথা ভুললে চলবে না,আমরা প্রত্যেককেই কোনো না কোনো নারীর সন্তান। 

বিখ্যাত ফরাসি দার্শনিক রোঁমারোঁলা বলেছেন, " একটা ভালো মেয়ে মানুষ মানেই পৃথিবীতে স্বর্গের এক টুকরো!  শুধু পৃথিবীতে স্বর্গ"। এই স্বর্গকেই আমরা প্রতিনিয়ত নির্যাতন, প্রহসন,নিষ্পশিতসহ নানাভাবে হেয় করে চলেছি।যেটি প্রতিহত করতে অন্তরাত্নার জাগরণ অত্যন্ত জরুরি। নারীকে নারী নয়,মানুষ ভাবাই হোক আমাদের অঙ্গীকার।


হুমায়রা তাসনিম 

সমাজসেবী, জয়পুরহাট

সাইবার বুলিং রুখে দিন 

সাম্প্রতিককালে সোস্যাল মিডিয়া, পত্রিকার পাতা কিংবা গণযোগাযোগ মাধ্যমগুলোর শীর্ষ ও নিয়মিত খবর নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা! সামাজিক মাধ্যমে  বিষয়গুলো বড় আকারে দেখানো হলেও বাস্তবে ঠিক উল্টা চিত্র! ভার্চ্যুয়াল জগতে নারী নির্যাতন নিয়ে হ্যাশট্যাগ করা প্রোফাইলের মালিক গুলোও সুযোগ পেলে নারীদের বিভিন্ন ভাবে অবমাননা ও সাইবার বুলিং করে থাকে! আমাদের দেশে প্রায়শই নারীরা ঘরে এবং বাইরে কর্মস্থলে, বাসে, ট্রেনে যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। দুই মাসের শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধা কেউই এই সহিংসতা থেকে রক্ষা পাচ্ছে না! 

নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে দেশে একাধিক শক্তিশালী আইন থাকলেও তার যথাযথ প্রয়োগ ঘটে নামমাত্র। বিচারহীনতা ও বিলম্বতার কারণে দিনউত্তর অপরাধ বেড়ে চলেছে। ধর্মীয় এবং মানবিক মূল্যবোধের অবক্ষয়, পারিবারিক শাসন ও সঠিক শিক্ষার অভাব এই অপরাধ সংগঠন হওয়ার পেছনে অনেকাংশে দায়ী। 

সংস্কৃতির নামে অশ্লীল নাচ-গান,  অশ্লীল ও উগ্র পুরুষবাদী নাটক-সিনেমা ও তরুণ প্রজন্মকে পর্নোগ্রাফির নীল ছোবল থেকে থেকে বাঁচাতে হবে। সবগুলো পর্নো সাইট বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে বন্ধে আরও কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। এবং নিজ নিজ ধর্ম চর্চায় উৎসাহিত করতে হবে!


নওরীণ জোয়ার্দার 

সমাজকর্মী ঝিনাইদহ 

"নারীর প্রতি নির্যাতন প্রতিহত করো"


"নারী" শব্দটি যেনো দিন দিন নির্যাতন ও শোষণের প্রতিশব্দে পরিণত হচ্ছে! জ্ঞান -বিজ্ঞান -প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় বিশ্ব এগিয়ে গেলেও থমকে থাকছে মানুষের বিবেকের দরজা। এখনো বাংলাদেশ থেকে শুরু করে ভারত, নেপাল, পাকিস্তান, ইরানের মতো দেশে ৯৫%পরিবার তাদের কন্যার বিয়েতে যৌতুক দিতে বাধ্য হন। কিন্তু শুধু যৌতুকেই থেমে না থেকে শুরু হয় এ থেকে জঘন্য অপরাধ। যেমনঃ ধর্ষণ,খুন, পাচার, এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম পর্যন্ত শারীরিক মানসিক নির্যাতন। 

পর্যালোচনা করে দেখা গেছে  প্রতি বছর সারাদেশে যে পরিমাণ দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলা স্থগিত হয়, এর চেয়ে কয়েকগুণ বেশি স্থগিত থাকে নারী নির্যাতনের মামলা। আর বিপুল হারে নারীর প্রতি সহিংসতা বৃদ্ধির একমাত্র কারণ আইনের বাস্তবায়নে সীমাবদ্ধতা এবং প্রয়োগ-পদ্ধতিতে ত্রুটি। যৌতুকের দাবি ও যৌতুকের জন্য নির্যাতনের মাত্রা আশঙ্কাজনক ভাবে বাড়তে থাকায় "১৯৮০" সালে প্রণিত  হয় "যৌতুক নিরোধ আইন"। কিন্তু আইন ধনী লোকের কাছে খোলা আকাশের মতো আর দরিদ্রের কাছে মাকড়সার জালের মতো। এ আইনে কাজ হলো না!এর পর প্রয়োগ করা হয়" ১৯৯৫" সালের "নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ বিধান আইন"। শেষ পর্যন্ত এটাও ব্যর্থ!

সর্বশেষ প্রয়োগ করা হয় " ২০০০(২০০৩ সালে সংশোধিত) সালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন"।

এরপরও থামছে না নির্যাতনের হার এবং দিনে দিনে যেনো বৃদ্ধি পাচ্ছে নির্যাতনের ধরণ ও! শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধা পর্যন্ত নির্যাতিত হচ্ছে শুধুমাত্র নারী হবার কারণে!

মানুষের দৃষ্টি ভঙ্গির পরিবর্তন, নারীর ক্ষমতায়ন এবং আইনের কঠিন প্রয়োগই পারে এ অন্যায় গোড়া থেকে নির্মূল করতে।আর পরিবার থেকেই  শুরু করতে হবে এই আমূল-পরিবর্তন।


নুসরাত জাহান

সমাজসেবী রাজশাহী

নারী নির্যাতন রোধে মূল্যবোধ ও আইনের প্রয়োগ । 

পুরুষশাসিত আমাদের এ সমাজে একটি বিশাল ব্যাধি  'নারী নির্যাতন'। প্রাচীনকাল থেকেই নারীর ওপর অত্যাচার, নিপীড়ন এসব ঘটনা অনিবার্য হিসেবেই চলে আসছে। দারিদ্র্য, বেকারত্ব, অশিক্ষা প্রভৃতি নারীর প্রতি সহিংসতার কারণ। প্রতিনিয়ত নারীরা ধর্ষণ, এসিড নিক্ষেপ, যৌতুক, অপহরণ, পারিবারিক নির্যাতন, এমনকি হত্যারও শিকার হচ্ছে। ঘরের বাইরে, রাস্তা-ঘাটে, যানবাহনে, কর্মক্ষেত্রে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে - সবখানেই নারীরা নিরাপত্তাহীন।

 বাংলাদেশ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ (২০০০ সনের ৮ নং আইন) সংশোধিত ২০১৩ অনুযায়ী নারী নির্যাতনের জঘন্য অপরাধ প্রমাণিত হলে অপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন থেকে মৃত্যুদন্ডও হতে পারে। এছাড়াও রয়েছে অর্থদন্ডের বিধান। নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে দেশের তরুণ-যুবসমাজকে সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে। নারীদেরও সোচ্চার হতে হবে। জোরালো কন্ঠে কথা বলতে হবে নিজের অধিকার আদায়ে।  নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে আইন ছাড়াও প্রয়োজন দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। সর্বোপরি নারীকে নারী নয়, যখনই তাদেরকে সমকক্ষ হিসেবে বিবেচনায় আনা হবে, তখনই অনেকাংশে কমে আসবে নির্যাতন। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে প্রচলিত আইন নারীদের কাছে পৌঁছানো সহজলভ্য করলে, তবেই আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ তথা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সম্ভব হবে।


আরও খবর


আমার একজন বড় ভাই আছেন

১৫ দিন ১১ ঘন্টা ৪৬ মিনিট আগে


মা ইলিশ রক্ষায় সোচ্চার হতে হবে

১৬ দিন ২৩ ঘন্টা ৩৭ মিনিট আগে